আলমডাঙ্গার খাদিমপুর ইউনিয়রের পাঁচটি গ্রামে যুবলীগের উদ্যোগে ঈদ উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে নঈম হাসান জোয়ার্দ্দা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: করোনাভাইরাসের সংক্রমন রোধে চুয়াডাঙ্গা জেলার খেটে খাওয়া
মানুষ গুলো কর্মহীন হয়ে পড়েছে।

ওইসব কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুয়ের পাশে দাড়ালেন আলমডাঙ্গার খাদিমপুর ইউনিয়নের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মেসার্স শিমুল ট্রেডার্সের মালিক
শিমুল হোসেন। চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গার খাদিমপুর ইউনিয়নের পাঁচটি গ্রামের ৬ শতাধীক পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। খাদিমপুর ইউনিয়ন
যুবলীগ নেতা অত্র এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মেসার্স শিমুল ট্রেডার্সের মালিক শিমুল হোসেন ও তার ভাই সবুজ হোসেনের উদ্যোগে গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত
খাদিমপুর ইউনিয়নের বটিয়াপাড়া, শিয়ালমারী, পাঁচকমলাপুর, কেষ্টপুর ও কান্তপুর এলাকায় ৬ শতাধীক অসহায় পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার হিসাবে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। বাংলাদেশ
আওয়ামী যুবলীগের চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আহŸায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। এসময় তিনি সমাজের সকল
বৃত্তবানদের অসহায় মানুষের পাশে াড়ানোর আহŸান জানান। খাদ্র সামগ্রী য়োর সময় মেসার্স শিমুল ট্রেডার্সের মালিক শিমুল হোসেন ঈদ উপহার হিসাবে খাদ্য সামগ্রী
বিতরণ করতে েিগয়ে বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষগুলো অসহায় হয়ে পড়েছেন। আমরাতো আমাদের পরিবার পরিজন নিয়ে আরামে দিন পার করছি।
কর্মহীন হয়েপড়া মানুষগুলোর পাশে াড়াতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে। আমরা যি তাদের
পাশে না থাকি তাহলে ওইসব অসহায় মানুষগুলো দাড়াবে কোথায়। এ সময় তিনি আরও বলেন, পবিত্র রমজান মাসের প্রথম দিকে প্রায় ৫ শতাধীক পরিবারকে উপহার হিসাবে খাদ্য সামগ্রী
বিতরণ করা হয়েছে। গতকালও আবার ৬ শতাধীক পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয়েছে। দোয়া করবেন আমি যেন ুর্শসময়েও ওইসব অসহায় মানুষের পাশে থেকে তারে সাহাস্য করতে
পারি।এদিকে, ঈদ খাদ্য সামগ্রী পেয়ে অসহায় পরিবারের মানুষগুলো অশ্রæসজল নয়নে বলতে থাকে
ক’দিন আগেও আমাদের ঘরে খাবার কিছুই ছিলোনা। ঈদে কি করবো ভাবছিলাম, ঠিক এ সময়ে আমরা খাদ্য সামগ্রী পেয়ে পরিবারের সকলের মুখে ঈদের দিন একটু খাবার তুলে দিতে
পারবো।এসময় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা মাসুদুর রহমান মাসুম, টুটুল, শেখ রাসেল, ঠিকাদার টগর, আলমডাঙ্গার ব্যবসায়ী হাজী শহিদুল ইসলাম, বটিয়াপাড়ার মোমিন, শিয়ালমারির মিনারুল, পাঁচকমলাপুরের ফিরোজ, কেষ্টপুরের হাসান, কান্তপুরের সাফায়েতসহ অন্যরা।