অনিয়ম করলে ভিআইপিদের বিমানে চড়া বন্ধ ঃ প্রধানমন্ত্রী

cnnbangla.com.bd: বিমানবন্দর ব্যবহারে সবাইকে নিরাপত্তা বিষয়ক নিয়মগুলো মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, অনিয়ম করলে ভিআইপিদের বিমানে চড়াই বন্ধ হয়ে যাবে

শনিবার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নতুন দুই বিমান ‘সোনার তরী’ ও ‘অচিন পাখি’ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে ড্রিমলাইনার ৭৮৭-৯ সিরিজের নতুন এই দুই বিমান যোগ করা হয়। একই সঙ্গে শাহজালাল বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণ কাজে উদ্বোধন করা হয়।

বিমানবন্দরের নিরাপত্তা সংক্রান্ত নিয়মাবলী সবাইকে মেনে চলার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি ভিআইপিসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকের নিয়ম না মানার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, ‘নিরাপত্তা বিষয়টাতে অনেক গুরুত্ব দিয়েছি, সেভাবে কাজ করে যাচ্ছি। নিরাপত্তার যে নিয়মগুলো আন্তজার্তিক পর্যায়ে আছে, আমাদের সব যাত্রীকে সেটা মেনে নিতে হবে।’

এসময় তিনি মন্ত্রী, ‘এমপি ও ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা যখন বিদেশে যান, তখন যেভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়, ঠিক সেইভাবে সবাইকে সেটা মেনে নিতে হবে। সেখানে কেউ কোনো বাধা দিতে পারবেন না। যদি কেউ বাধা দেন, তাহলে ভবিষ্যতে বিমানে চড়াই বন্ধ হয়ে যাবে।

অনিয়মের খবর তার কাছে পৌঁছে যায় জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন,  ‘একটা কথা মনে রাখবেন। সারাদিন আমি দেশের কাজই করি। কোথায় কী হয়, না হয়, টুকটাক খোঁজ-খবর নেওয়ার চেষ্টা করি। কাজেই অনিয়ম ঘটাতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে আমার কাছে কিন্তু খবর চলে আসে। এটা সবাইকে মনে রাখতে হবে।’

স্বর্ণপাচার বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এগুলো বন্ধ করতে হবে। বিমানের সুনাম আন্তর্জাতিকভাবে যেন বৃদ্ধি পায়।’

দুর্নীতি-অনিয়মে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজ আমরা সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছি, মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছি, দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চালাচ্ছি। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক, দুর্নীতি- যেই করবেন তাদের কিন্তু ছাড়া হবে না; যেই হোক না কেন। আমরা বাংলাদেশকে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক, দুর্নীতি মুক্ত করে গড়ে তুলতে চাই।’

বিমানবন্দরে যাত্রী হয়রানি পুরোপুরি বন্ধের নির্দেশ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের যারা বিদেশে কাজ করে, যাদের অর্থে আমরা বৈদেশিক মুদা অর্জন করি, আমাদের রিজার্ভ নিশ্চিত হয়, তারা যখন একটা কর্মস্থল থেকে ফেরে, নানাভাবে তাদের অনেক সময় হয়রানি করা হয়।’

‘এখন এটা অনেকটা কমে গেছে। তারপরও আমি বলবো যে, যারা আমাদের দেশের নাগরিক বিদেশে যায়, আমরা সেখানে জনশক্তি রপ্তানিও করি এবং সেখান থেকে বিরাট অংকের বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করি; তাদের সুবিধাগুলো দেখতে হবে, তাদের যেন কোনোরকম হয়রানি এখানে করা না হয়, সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজ আমরা তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলাম। এখানে কার্গো বিমান নামার ব্যবস্থা থাকবে। কার্গো ভি‌লেজ গ‌ড়ে তোলা হ‌বে। তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ করাটা বিশাল একটা কর্মযজ্ঞ। এ টার্মিনাল নির্মাণ কাজ এবং ড্রিমলাইনার ৭৮৭-৯ সিরিজের নতুন দু’টি উড়োজাহাজ ‘সোনার তরী’ ও ‘অচিন পাখি’ ক্রয় আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের আরেকটি সূচক। আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন অনুযায়ী বাংলাদেশকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত এবং উন্নত দেশ হিসেবে গড়তে চাই। এই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।

এসব উন্নয়নকাজ উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, বিমানের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান ইনামুল বারী, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মফিদুর রহমান, বিমান সচিব মহিবুল হক, বিমানের এমডি মোকাব্বির হোসেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্টদূত প্রমুখ।